দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধোত্তরকালে বিভিন্ন দেশে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার কারণ কী ছিল?

উত্তর : প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর একমাত্র সােভিয়েত রাশিয়াতে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর পােল্যান্ড, চেকোশ্লোভাকিয়া, যুগােশ্লোভিয়া, পূর্ব জার্মানি প্রভৃতি ১০টির ও বেশি দেশে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়। অবশ্য এর কারণও ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর হউরােপের অবস্থা ভগ্নদ্শাগ্রস্ত হয়ে দাঁড়ায়। এই যুদধে বিজিত রাষ্ট্রগুলি যথা – জার্মানি, ইতালি ও তাদের মিত্রশক্তিগুলির আর্থিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে দারুণ বিপর্যয় নেমে আসে। তেমনি আবার ইউরােপের শিল্প সমৃদ্ধ সাম্রাজ্যবাদী ব্রিটেন, ফ্রান্স প্রভৃতির দুর্দশারও সীমা ছিল না। একমাত্র সােভিয়েত রাশিয়াই নিজের শক্তিতে দাঁড়িয়ে থাকতে সক্ষম হয়েছিল। পূর্ব-ইউরােপের বৃহৎ অংশ সােভিয়েত রাশিয়া লাল ফৌজ দ্বারা ইতালি ও জার্মান বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করেছিল। সেখানকার প্রাকৃ যুদ্ধকালীন সামস্ততান্ত্রক সমাজ ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। সােভিয়েত রাশিয়া ওইসব অঞ্চল থেকে যুদ্ধের ক্ষতিপূরণ বাবদ বহু কলকারখানা তুলে নেয়। ফলে সেখানে অর্থনৈতিক সংকট চরমে ওঠে। স্বাভাবিক ভাবেই পূর্ব ইউরােপের এই ভাঙন ধরা অবস্থায় জনগণের সমাজতন্ত্রের প্রতি আগ্রহ দেখা দেয়। অন্যদিকে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে একই সঙ্গে সােভিয়েত রাশিয়া ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ফ্যাসিবাদী ও নাৎসিবাদী শক্তির বিবুদ্ধে সংগ্রাম করলেও এই দুটি দেশ ছিল বিপরীত মতাদর্শী। সােভিয়েত রাশিয়া বিশ্বে ধনতন্ত্রের অবসান ঘটিয়ে সমাজতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নীতিতে পরিচালিত হয়।। অপরদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ধনতান্ত্রিক তথা গণতন্ত্রিক রাষ্ট্রগুলির নেতা হিসেবে সাম্যবাদের প্রভাব থেকে বিশ্বকে রক্ষা করার নীতিতে পরিচালিত হয়। আমেরিকা মার্শাল প্ল্যান প্রভৃতির মাধ্যমে পশ্চিম ইউরােপের রাষ্ট্রগুলিতে কমিউনিস্ট আন্দোলনগুলিকে দমন করতে সক্ষম হয়। কিন্তু পূর্ব ইউরােপের অবস্থা ছিল অন্যরকম। পূর্ব-ইউরােপের দেশগুলিতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ফলে সাম্রাজ্যবাদের শক্তিহীনতার পাশাপাশি সমাজতান্ত্রিক শক্তিগুলি জোরদার হয়ে ওঠে এবং, তার সঙ্গে সােভিয়েত রাশিয়ার সক্রিয় সাহায্য ও সহযােগিতায় সেখানে সমাজতান্ত্রিক সরকার প্রতিষ্ঠা সম্ভব হয়। এজন্য একশ্রেণির ঐতিহাসিক বুশ লাল ফৌজের হস্তক্ষেপ ও বুশ সরকারের সক্রিয় সমাজতন্ত্রীকরণ নীতিকে দায়ী করেন। তাদের অভিযােগ যে, পূর্ব-ইউরােপকে জার্মান শাসন থেকে লালফৌজ মুক্ত করার পর এই অঞ্চলগুলিতে,লাল ফৌজের ছত্রছায়ায় তাবেদার কমিউনিস্ট দলের সাহায্যে তাবেদারী সরকার প্রতিষ্ঠা করা হয়।

Leave a Reply